Loading...

গৃহবন্দী গল্প

গৃহবন্দী গল্প

ছড়িয়ে পড়ুক চার দেয়ালে আটকা পড়া গল্পগুলো

 
 

ব্যস্ত মানবজীবন। সকাল থেকে সন্ধ্যা দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলা পৃথিবী। দুদণ্ড ফুরসত নেই কারো। কত্ত স্বপ্ন,কাজ আর পরিকল্পনা এগিয়ে চলার।
হঠাৎ কোভিড-১৯। দুর্বার পৃথিবীর অসহায় থমকে পড়া এক আণুবীক্ষণিক জীবের কাছে!!!
শুরু লকডাউন!!
গৃহবন্দী ব্যস্ত মানবজাতি।তারপর শুরু এক নতুন গল্পের।
আপনার,আমার গল্প,সমগ্র পৃথিবীর মানুষের গল্প।একদিকে টিকে থাকার লড়াই।অন্যদিকে গৃহবন্দীত্বের মাঝেও আপনার আমার মতো সাধারণ মানুষের নতুন কিছু করার বা শেখার গল্প।

লকডাউন শুরুর আগে কেনা নতুন ক্যামেরার যথোপযুক্ত ব্যবহার করা আরাফাতের কাছে এখন ক্যামেরাকে খেলনা মনে হয়।
লকডাউন শুরুর অনেক আগে থেকেই গৃহবন্দী সাইমা। বাইরে বের হওয়া হয়নি!
হাসান পুরো সময়টা ঘুমিয়ে, বই পড়ে, মুভি দেখে অলস সময় কাটিয়েছে।
জেরিন অনলাইন কোর্স করেছে, ভিডিও ইডিটিং শিখেছে।
শাহরিয়ার নতুন স্টার্টআপ শুরু করেছে এই সময়েই!
রান্নাঘর থেকে সবসময় দূরে থাকা সুন্নাতুল নতুন নতুন রান্না শিখেছে।

এসব দেখে কী ভাবছেন?
আপনারও তো এমন গল্প আছে!!! হয়তো এর চেয়েও সুন্দর, এর চেয়েও আকর্ষণীয় বা খানিকটা সাদামাটা গল্প।
অনেক তো কাটালেন গৃহবন্দী সময়,এবার না হয় সবার সাথে একটু শেয়ার করুন। আপনার চমৎকার গল্পটি নিজের মতো করে তুলে ধরুন এবং পাঠিয়ে দিন আমাদের কাছে। আপনার সেই চমৎকার গল্পটি প্রকাশ করবো আমাদের ওয়েবসাইটে।
আপনার এই ‘গৃহবন্দী গল্প’ সুন্দরভাবে উপস্থাপনের ভিত্তিতে আপনাদের মধ্য হতে ১০ জন সৌভাগ্যবান/সৌভাগ্যবতী পাবেন অনলাইন সার্টিফিকেট ।
(বি.দ্রঃ লেখা নির্বাচন, সার্টিফিকেট সংখ্যা বৃদ্ধি বা হ্রাস, যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।)

লেখা পাঠানোর নিয়মঃ


এই লিংকে গিয়ে লেখা পাঠানোর অপশনে আপনার সকল তথ্য ভালভাবে পূরণ করে লেখা পাঠাতে হবে। আর ‘বিষয়’ এর স্থলে “গৃহবন্দী গল্প” এবং আপনার গল্পের কোনো নাম লিখতে হবে।
লেখা পাঠানোর লিংকঃ https://agamiramra.com/submit/

ওয়েবসাইট লিংক: www.agamiramra.com

কোনো প্রশ্ন বা জিজ্ঞাসা থাকলে পেজের ইনবক্সে জিজ্ঞেস করতে পারেন।
পেজের লিংকঃ facebook.com/agamir.amraa